সীতাকুণ্ডে চট্টগ্রাম বন্দর সম্প্রসারিত হবে, মানুষের ভাগ্য সুপ্রসন্ন হবে: দিদারুল আলম

সীতাকুণ্ড সমিতির ১৬ বছরপূর্তি উৎসব সম্পন্ন

৫৬

বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন হলো চট্টগ্রাম শহরে বসবাস ও কর্মরত সীতাকুণ্ডবাসীর সংগঠন সীতাকুণ্ড সমিতি-চট্টগ্রাম এর ১৬ বছর পূর্তি উৎসব।
এ উপলক্ষে শনিবার (১৮ নভেম্বর) নগরীর এম এম আলী রোডস্থ রয়েল গার্ডেনে মিলনমেলা, শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা আয়োজনে অংশ নেন সমিতির বিপুল সংখ্যক সদস্য। প্রতিষ্ঠার ১৬ বছরপূর্তিকে ঘিরে সমিতির সূধিজন ও সীতাকুণ্ডের নানা শ্রেণিপেশার মানুষের স্বত:স্ফূর্ত উপস্থিতিতে রয়েল গার্ডেন রূপ নেয় ‘একখণ্ড সীতাকুণ্ডে’।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, চট্টগ্রাম-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও সমিতির প্রধান উপদেষ্টা দিদারুল আলম। বর্ষপূর্তি উপলক্ষে সমিতির সাবেক ও বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটির নেতৃবৃন্দর অংশগ্রহণে কেক কাটেন প্রধান অতিথি দিদারুল আলম এমপি।

সমিতির সভাপতি ও রিটজী গ্রুপের পরিচালক মীর্জা মো. আকবর আলী চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে দিদারুল আলম এমপি, বর্তমান সরকারের সময়ে সীতাকুণ্ডে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের চিত্র তুলে ধরেন। এমপি দিদারুল আলম বলেন, মুরাদপুর উপকূলে চট্টগ্রাম বন্দর সম্প্রসারিত হবে, এজন্য জমিও চিহ্নিত করা হয়েছে। এতে সীতাকুণ্ডের উন্নয়ন যেমন নিশ্চিত হবে, তেমনি এলাকার মানুষের ভাগ্যও সুপ্রসন্ন হবে।

এ সময় তিনি সমাজসেবা ও মানবকল্যাণে সরকারি ও তাঁর পারিবারিক অবদানের কথা তুলে ধরে বলেন, প্রধানমন্ত্রী তাঁকে দুইদফা সীতাকুণ্ডবাসীর সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন। এই সময়ে স্বার্থহীনভাবে এলাকার সার্বিক উন্নয়নে কাজ করা হয়েছে উল্লেখ করে বলেন, প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নতুন বহুতল ভবন নির্মাণ করে দিয়েছি। একটি কলেজ সরকারিকরণ করা হয়েছে। নিজের শিল্পপ্রতিষ্ঠানের জন্য কেনা জমিতে কলেজ করে দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি। আগামীতে এমপি না হলেও তিনি ব্যক্তিগত ও পারিবরিক উদ্যোগে সমাজসেবামূলক কাজ চালিয়ে যাবেন বলে দৃঢ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, পুলিশের এডিশনাল ডিআইজি মোহাম্মদ মুসলিম ও সীতাকুণ্ড উপজেলা (ভারপ্রাপ্ত) চেয়ারম্যান জয়নব বিবি জলি।

মোহাম্মদ আলিম উল্লাহ মুরাদ ও মোহাম্মদ আবেদীন আল মামুন এর পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা এ কে এম আবু তাহের বিএস-সি, রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক মোস্তফা কামাল চৌধুরী, খাজা স্টীলের এমডি দিদারুল কবির দিদার, বিজয় স্মরণী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. জাহাঙ্গীর, সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সাইদুর রহমান হিলালী, রসায়নবিদ মোহাম্মদ দেলোয়ারুল ইসলাম, ইপসা’র প্রধান নির্বাহী মো. আরিফুর রহমান, সিনিয়র আইনজীবি এডভোকেট আবুল হাসান মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন, সাবেক এপিপি এডভোকেট ভবতোষ নাথ, মুরাদপুর ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান জাফর আহমদ, সমিতির সাবেক সভাপতি ও আল্ আরাফা ইসলামী ব্যাংকের চট্টগ্রাম জোনাল হেড মোহাম্মদ আজম, রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক দিদারুল ইসলাম মাহমুদ, সমিতির সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, ইস্পাহানী পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের ভাইস-প্রিন্সিপাল শাহীন আল রাজী, সমিতির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন মানিক, সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী মোহাম্মদ মহিউদ্দীন, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হাসনাত প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সম্প্রতি স্ব স্ব ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান এবং পেশাগত পদোন্নতি পাওয়া সমিতির ৮জন পৃষ্ঠপোষক ও আজীবন সদেস্যকে শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান করা হয়। সম্মাননা স্মারকে ভূষিত ব্যক্তিরা হলেন, ২৩তম জাতীয় রপ্তানী ট্রফি অর্জনে প্যাসিফিক জিন্স লি. এর এমডি সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর, বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মো. তাজুল ইসলাম, পুলিশের এডিশনাল ডিআইজি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত অনিন্দিতা বড়ুয়া, বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালক হিসাবে পদোন্নতিতে সিলেটের বিভাগীয় প্রধান মো. আনিসুর রহমান, যুগ্ম সচিব হিসাবে পদোন্নতিতে মোহাম্মদ শামীম সোহেল, এডিশনাল কমিশনার অব কাস্টমস হিসাবে পদোন্নতি মোহাম্মদ তফছির উদ্দিন ভূইয়া, সিআইপি নির্বাচিত হওয়ায় রিটজী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মির্জা মো. জামশেদ আলী এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রপ্তানি ট্রফি প্রাপ্ত সিআইপি মোহাম্মদ নুর উদ্দীন রুবেল।

অনুষ্ঠানের প্রথমপর্বে সীতাকুণ্ডের প্রাণ-প্রকৃতি ও উদ্ভিদ বৈচিত্র নিয়ে সীতাকুণ্ড সমিতির উদ্যোগে পরিচালিত গবেষণার চিত্র তুলে ধরেন গবেষণার নেতৃত্বদানকারী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এবং সীতাকুণ্ড সমিতি- চট্টগ্রামের কৃষি, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ড. মোহাম্মদ ওমর ফারুক রাসেল। এতে সীতাকুণ্ডের পূর্বে পাহাড় ও পশ্চিমে সাগরবেষ্টিত ছোট্ট জনপদের প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র ও পরিবেশ সমুন্নত কিংবা ভারসাম্য বজায় রেখে যে কোনো উ্ন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার ওপর জোর দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান গবেষণার যৌক্তিকতা এবং সীতাকুণ্ডের নানা সমস্যা ও অপার সম্ভাবনার দিকগুলো তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক শেখ বখতিয়ার উদ্দীন।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও চাঁটগাইয়া মেজবানের মধ্য দিয়ে শেষ হয় বর্ষপূর্তির এই মিলনমেলা। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন সমিতির সাংস্কৃতিক সম্পাদক জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী আকলিমা মুক্তাসহ জনপ্রিয় শিল্পীরা।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.