সাতকানিয়ায় চাঁদার দাবিতে ইটভাটায় সন্ত্রাসী হামলা ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ

২,৫৭৯

সাতকানিয়ায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতায় একটি ইটভাটা দখলচেষ্টা, ভাংচুর ও লুটপাটের প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে মোহাম্মদ নোমান নামের এক ব্যবসায়ী।

বৃহস্পতিবার (২৫ মে) চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ২০২১ সালের মার্চ মাসে এক কোটি পচিশ লক্ষ টাকায় নয় বছরের জন্য বিক্রয় চুক্তির মাধ্যমে ওসমান গণি একটি আধুনিক ইটভাটা ক্রয় করেন। কিন্তু ইটভাটা নেয়ার এক বছর অতিবাহিত না হতেই আনছারুল হক নামে এক ব্যক্তি গত ১৮ মে সন্ধ্যায় সাতকানিয়া উপজেলার এওচিয়া আদর্শগ্রাম এলাকায় সন্ত্রাসী নিয়ে হামলা চালায়।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আরও বলা হয়, বিশ জনের অধিক সন্ত্রাসী নিয়ে মোহাম্মদ নোমানের পরিচালনাধীন ব্রিক ফিল্ডটিতে হামলা করা হয়। হামলাকারীরা তিনটি একনলা বন্দুক ও দেশী অস্ত্র নিয়ে অতর্কিতে আক্রমন করে প্রকল্পে ব্যাপক ভাংচুর চালায়। চার হাজারের অধিক কাঁচা ইট ভেঙ্গে দেয়ার পাশাপাশি ক্যাশ ভেঙ্গে চল্লিশ হাজার টাকা লুট করে। হামলকারীরা এই সময় প্রকল্পের কর্মকর্তা কর্মচারীদের হাতপা বেধে জিম্মি করে জীবন নাশের চেষ্টা করতে থাকে এবং তাৎক্ষণিক পাঁচ লক্ষ টাকা চাঁদা দিতে বলে। প্রকল্পের মালিক নোমান নিরুপায় হয়ে তাৎক্ষণিক এক লক্ষ টাকা প্রদান করে। সন্ত্রাসী আরো চার লক্ষ টাকা ১২ ঘন্টার মধ্যে দিতে, অন্যথায় প্রকল্পে কর্মরত শ্রমিক কর্মচারীদের বের করে দিয়ে মালিক নোমানকে হত্যার করার হুমকি দিয়ে যায়।

প্রকল্পটির মালিক মোহাম্মদ নোমান নিরুপায় হয়ে গত ২৩ মে সাতকানিয়া থানায় ১৪জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হচ্ছেন, কামাল উদ্দিন, সাইফুল ইসলাম, সৈয়দুল হক, মোহাম্মদ ঈসা, আবুল কালাম, মোহাম্মদ ফারুক, আবদুল মান্নান, মোহাম্মদ মনজুর হাসান, আবু তাহের, আবদুল কাদের, মো. জামশেদুল করিম চৌধুরী, খোরশেদুল আলম, মোহাম্মদ আবু বক্কর প্রকাশ কালা বক্কর।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, থানায় মামলা দায়ের করার পরও আসামীরা ব্রিক ফিল্ডের মালিককে প্রাণ নাশের হুমকি ধমকি অব্যাহত রেখেছে। প্রকল্পের মালিক মোহাম্মদ নোমান সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, নিজের পৈতৃক সম্পত্তি বিক্রি করে এই ব্রিক ফিল্ডটি ক্রয় করেছি। আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে ধার দেনা করে প্রকল্পটিতে উৎপাদন অব্যাহত রেখেছিলাম। কিন্তু সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে পুরো প্রকল্পের উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। আবারও সন্ত্রাসী হামলার ভয়ে কর্মকর্তা কর্মচারীরা প্রকল্প এলাকায় যাচ্ছে না। তিনি হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান।

এই বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ বলেন, একটি ব্রিক প্রজেক্টে হামলার বিষয়ে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। দ্রুত অভিযুক্তদের আইনের আওতায় আনা হবে। আসামীদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত আছে।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, মোহাম্মদ নোমান। এই সময় রিপন তালুকদার, তাইজুল ইসলাম ওমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.