নগরে ফুল উৎসব উদ্বোধন

১২

চট্টগ্রামে শুরু হয়েছে মাসব্যাপী ফুল উৎসব। নগরের ফৌজদারহাট নগরীর লিংক রোড এলাকার ডিসি পার্কে এই উৎসবের আয়োজন করে জেলা প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুরে মাসব্যাপী দ্বিতীয় চট্টগ্রাম ফুল উৎসবের উদ্বোধন করেন মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোহাম্মদ মাহবুব হোসেন।

বিশাল এলাকা জুড়ে আয়োজিত ফুল উৎসব বংগোপসাগর উপকূলে ১৯৪ একর জমিতে গড়ে তোলা হয়েছে ডিসি পার্ক নামের বর্ণিল বাগান। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, এক সময় পুরো এলাকাটি মাদক ও অপরাধীদের অভয়ারণ্য ছিল। গত বছর অবৈধ দখলদারদের করে উচ্ছেদ করে সেখানে পার্কসহ বিনোদনের নানান সুবিধা গড়ে তোলা হয়। ইতোমধ্যেই পার্কে ভীড় করতে শুরু করেছে বিনোদনপ্রেমীরা।

জেলাপ্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. তোফায়েল ইসলাম।

উপস্থিত ছিলেন সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে.এম রফিকুল ইসলাম, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আশরাফুল আলম, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আলাউদ্দিন, সীতাকুণ্ড মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি মো. কামাল উদ্দিন প্রমুখ।

অনেকটা বৈরি আবহাওয়ার মধ্যেও ফুল উৎসবে সর্বস্তরের মানুষের উপস্থিতি ছিলো চোখে পড়ার মতো। এ ফুলের রাজ্যে প্রথমদিন কয়েকহাজার দর্শনার্থী ঘুরতে এসে মুগ্ধ হয়েছেন।

যেখানে প্রায় পাঁচ হাজারেরও বেশি ফুলের দেখা মিলবে। এছাড়া ফুল উৎসবে রয়েছে চট্টগ্রামের ঐতিহ্য ১৫টি সাম্পানের প্রদর্শনী, ঘুড়ি উৎসব, পুতুল নাচ, ভায়োলিন শো, ঘুড়ি উৎসব, মাছধরার সুব্যবস্থা ও কিডস জোনসহ চিত্র প্রদর্শনীর মত নানা ধরনের আয়োজন। ।

একসময় যে জায়গায় মাদকের আখড়া ছিল, আজ সেখানে ফুলের আখড়ায় পরিণত হয়েছে ডিসি পার্ক। প্রায় ১৯৪ একর জায়গাজুড়ে ফুলের রাজ্যে এসে সাময়িক ভাবে মানসিক চাপ থেকে মুক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রীপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন। ফুল উৎসব উদ্বোধনের সময় ডিসি পার্ক নিয়ে প্রশংসা করেন তিনি।

উদ্বোধনী সমাবেশে তিনি বলেন, যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী ইশতেহারে পর্যটনকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে এই ফুল উৎসবের মাধ্যমে আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর চিন্তা চেতনাকে সামনে নিয়ে যাওয়ার অবারিত সুযোগ রয়েছে। সামনের প্রজন্ম এর জন্য আমাদেরকেই পরিবেশ ও সুযোগ তৈরি করতে হবে। পাশাপাশি প্রশাসনের একজন প্রতিনিধি হিসেবে অন্যান্য জেলাপ্রশাসক গণকেও এই ধরনের আয়োজন করার জন্য বিশেষ আহ্ববান রইল।

তিনি আরও বলেন, আমি মনে করি এই ডিসি পার্ক সারা বাংলাদেশের জন্য একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্তে পরিণত হয়েছে। ডিসি পার্ক থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় ফুল নিয়ে কাজ করবে বলে আমি আশা করি। এখনে একটি জাদুঘর নির্মাণের পরিকল্পনা আছে। গত দুই মাস আগে যখন এসেছিলাম তখন জেলা প্রশাসকে ডিপিপি তৈরি করতে বলেছিলাম। ইতিমধ্যে ডিপিপি দিয়েছে। এবং যত রকমের কাগজ সংক্রান্ত কাজে জটিলতা দেখা গেলে আমি নিজ দায়িত্বে সবকিছু সমাধান করব।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৪ জানুয়ারি চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ডের সলিমপুরে মাদকের আস্তানা গুড়িয়ে দিয়ে ১৯৪.১৩ একর খাস জায়গা অবৈধ দখলদারদেরকে উচ্ছেদ করে জেলাপ্রশাসন। পরে উদ্ধারকৃত জায়গায় মাত্র একমাসের মধ্যে ৯ ফেব্রুয়ারি হতে ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১০দিনব্যাপী চট্টগ্রামে প্রথম ফুল উৎসবের আয়োজন করা হয়। সে সময় ১২২ প্রজাতির ফুলের চমকপ্রদ প্রদর্শনীর মাধ্যমে ফুল উৎসব উদযাপন করা হয়েছিলো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.